عن أبي هريرة -رضي الله عنه- قال: قال رسول الله -صلى الله عليه وسلم-: «مَنْ أَنْظَرَ مُعْسِرا، أو وضع له، أظَلَّهُ الله يوم القيامة تحت ظِل عرشه يوم لا ظِلَّ إلا ظِلُّه».
[صحيح.] - [رواه الترمذي والدارمي وأحمد.]
المزيــد ...

আবূ হুরাইরা রাদিয়াল্লাহু আনহু হতে বর্ণিত, তিনি বলেন, রাসূলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম বলেছেন, “যে ব্যক্তি পরিশোধে অক্ষম কোনো ঋণগ্রহীতাকে (তার সচ্ছলতা আসা অবধি) অবকাশ দিবে বা তাকে ক্ষমা করে দিবে, আল্লাহ তাকে কিয়ামতের দিনে নিজ আরশের ছায়াতলে স্থান দিবেন, যেদিন তার ছায়া ব্যতীত অন্য কোনো ছায়া থাকবে না।”
সহীহ - এটি তিরমিযী বর্ণনা করেছেন।

ব্যাখ্যা

আবু হুরায়রাহ সংবাদ দিয়েছেন যে, নবী সাল্লাল্লাহু ‘আলাইহি ওয়াসাল্লাম বলেছেন, “যে ব্যক্তি অভাবগ্রস্তকে অবকাশ দিলো” অর্থাৎ ঋণগ্রস্ত ব্যক্তিকে ঋণ পরিশোধে সময়—বিলম্বে আদায়ের অবকাশ দিলো। তাঁর বাণী, “অথবা তার নিকট থেকে পাওনা মাফ করে দিলো” অর্থাৎ ঋণ মাফ করে দিলো। আবূ নু‘আইমের বর্ণনায় এসেছে, অথবা ঋণের অংশ তাকে দান করল। তাহলে বিনিময়: আল্লাহ কিয়ামতের দিন তাঁর আরশের ছায়ায় তাকে ছায়া দিবেন। অর্থাৎ, বাস্তবেই তাঁকে আরশের ছায়ায় ছায়া দিবেন অথবা তাকে জান্নাতে প্রবেশ করাবেন। ফলে কিয়ামতের দিনের প্রচণ্ড গরম থেকে আল্লাহ তাকে রক্ষা করবেন। এ প্রতিদান সে সেদিন পাবেন যে দিন আল্লাহর ছায়া ছাড়া আর কোনো ছায়া থাকবে না। এ ধরণের প্রতিদান পাওয়ার কারণ হলো, যেহেতু সে ঋণগ্রস্ত ব্যক্তিকে নিজের ওপর অগ্রাধিকার দিয়েছেন এবং তাকে প্রশান্তি দিয়েছেন, আল্লাহও তাকে অনুরূপ প্রতিদান দেবেন—যেমন কর্ম তেমন ফল।

অনুবাদ: ইংরেজি ফরাসি স্পানিস তার্কিশ উর্দু ইন্দোনেশিয়ান বসনিয়ান রুশিয়ান চাইনিজ ফার্সি তাগালোগ ইন্ডিয়ান কুর্দি হাউসা
অনুবাদ প্রদর্শন
1: করযে হাসানা মুস্তাহাব। ঋণগ্রস্থ ব্যক্তির সাথে নম্র ও ভদ্র ব্যবহার করবে।
2: অভাবীকে সুযোগ দেওয়া বা পুরো পাওনা বা আংশিক পাওনা ক্ষমা করে দেওয়া এমন একটি আমল যা কিয়ামাতের দিন আল্লাহর আরশের নীচে ছায়া লাভ করাকে আবশ্যক করে—যেদিন তার ছায়া ছাড়া আর কোনো ছায়া থাকবে না।
3: ক্ষমাশীল ঋণদাতার ফযীলত এবং সে আখিরাতে যে মহান সাওয়াব লাভ করবে তার বর্ণনা।
4: আল্লাহর বান্দাদের প্রতি সহজ করার ফযীলত।
5: ঋণ দ্বারা লেন-দেন করা বৈধ।
6: মুয়াক্কিলের অনুমতিক্রমে উকীলের অনুদান বৈধ।