عن أبي هريرة رضي الله عنه : أن رجلًا قال للنبي -صلى الله عليه وآله وسلم-: أوصني، قال لا تَغْضَبْ فردَّدَ مِرارًا، قال لا تَغْضَبْ».
[صحيح] - [رواه البخاري]
المزيــد ...

আবূ হুরায়রা রাদিয়াল্লাহু আনহু হতে বর্ণিত, জনৈক ব্যক্তি নবী সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লামকে বলল, “আমাকে উপদেশ দিন, তিনি বললেন, “রাগান্বিত হয়ো না।” সে কয়েকবার একই প্রশ্ন করল। প্রকিবারই তিনি বললেন, “রাগ করো না।”
সহীহ - এটি বুখারী বর্ণনা করেছেন।

ব্যাখ্যা

জনৈক সাহাবী নবী সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লামের নিকট আবেদন করলেন, তিনি যেন তাকে এমন কিছু শিক্ষা দেন, যা তাকে দুনিয়া ও আখিরাতে উপকার করবে। তিনি তাকে নির্দেশ দিলেন, “সে যেন রাগান্বিত না হয়।” তার নির্দেশ “রাগ করো না” এর মাধ্যমে মানুষের অনেক অনিষ্টই দূর করা হয়েছে।

অনুবাদ: ইংরেজি ফরাসি স্পানিস তার্কিশ উর্দু ইন্দোনেশিয়ান বসনিয়ান রুশিয়ান চাইনিজ ফার্সি তাগালোগ ইন্ডিয়ান সিংহলী উইঘুর কুর্দি হাউসা পর্তুগীজ মালয়ালাম তেলেগু সুওয়াহিলি তামিল বার্মিজ জার্মানি জাপানিজ
অনুবাদ প্রদর্শন

ফায়দাসমূহ

  1. উপকারী বিষয়ের প্রতি সাহাবীগণের আগ্রহ প্রমাণিত হয়, কেননা তিনি বলেছেন, “আমাকে উপদেশ দিন”।
  2. প্রত্যেক রোগীকে তার রোগ অনুযায়ী চিকিৎসা করা। প্রমাণিত সাপেক্ষে যে, রাসূলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম এ লোকটিকে এ উপদেশ দিয়েছেন। কারণ, সে ছিল রাগী।
  3. রাগ হতে বেঁচে থাকা। কারণ এটি হলো সকল অনিষ্ঠতার মূল এবং তা বর্জন করা সকল কল্যাণের মূল।
  4. এমন সব ভালো কর্মের নির্দেশ দেওয়া যেগুলো পালন করলে বা অভ্যাস করলে রাগের কারণসমূহ পাওয়া যাওয়ার সময়ও তা থেমে যায়। যেমন, অনুগ্রহ করা, দান করা, সহনশীল হওয়া, লজ্জা করা ইত্যাদি।
  5. দীন ইসলামের সৌন্দর্য হলো এটি খারাব চরিত্র থেকে মানুষকে নিষেধ করে।
  6. আলেম থেকে উপদেশ চাওয়া উত্তম।
  7. একাধিক উপদেশ চাওয়া বৈধ।
  8. এখানে রয়েছে, “খারাব কর্মের উপকরণ বন্ধ করা” নীতির প্রমাণ।
  9. এতে রয়েছে নবী সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লামকে ‘জাওয়ামেউল কালিম’ (বাক সংক্ষিপ্তকরণ, তবে পূর্ণ অর্থ প্রকাশ) দ্বারা খাস করার প্রমাণ।
  10. কোনো কিছু থেকে নিষেধ করা দ্বারা তার কারণ থেকেও নিষেধ করা হয় এবং তা ছাড়ার ওপর যা সহযোগী তার প্রতি আদেশ করা হয়।
আরো