عن عمر بن الخطاب -رضي الله عنه- مرفوعاً: «إنما الأعمال بِالنيَّات، وإنما لكل امرئ ما نوى، فمن كانت هجرتُه إلى الله ورسوله فهجرتُه إلى الله ورسوله، ومن كانت هجرتُه لدنيا يصيبها أو امرأةٍ ينكِحها فهجرته إلى ما هاجر إليه».
[صحيح.] - [متفق عليه.]
المزيــد ...

‘উমার ইবনুল খাত্তাব রাদিয়াল্লাহু ‘আনহু থেকে মারফূ‘ হিসেবে বর্ণিত, “সব কাজ (এর প্রাপ্য) হবে নিয়্যাত অনুযায়ী। আর মানুষ তার নিয়্যাত অনুযায়ী প্রতিফল পাবে। তাই যার হিজরাত হবে ইহকাল লাভের অথবা কোনো মহিলাকে বিবাহ করার উদ্দেশ্যে তবে তার হিজরত সে উদ্দেশেই হবে, যে জন্যে সে হিজরত করেছে।”
সহীহ - মুত্তাফাকুন ‘আলাইহি (বুখারী ও মুসলিম)।

ব্যাখ্যা

এটি একটি মহান হাদীস। অনেক আলেম একে ইসলামের এক-তৃতীয়াংশ আখ্যায়িত করেছেন। মুমিনকে তার নিয়্যাতের শুদ্ধতা অনুযায়ী তার আমলের সাওয়াব দেওয়া হয়ে থাকে। যার আমল সুন্নাত অনুযায়ী নিরেট আল্লাহর জন্য হয়, তা কবুল করা হবে, যদিও তা কম হয়। পক্ষান্তরে যার আমল লোক দেখানোর জন্য হবে খালেস আল্লাহর জন্য হবে না তা প্রত্যাখ্যাত। যদিও তা মহান ও অনেক বেশি হয়। যে আমল দ্বারা আল্লাহর সন্তুষ্টি ভিন্ন অন্য কিছুর আশা করা হয়, চাই আশাকৃত বস্তু নারী হোক বা সম্পদ বা সম্মান ইত্যাদি দুনিয়াবী যে কোনো বস্তু তা আশাকারীর উপর নিক্ষেপ করা হবে। আল্লাহ তা‘আলা তার থেকে কিছুই কবুল করবেন না। সুতরাং নেক আমলসমূহ কবুল হওয়ার দুই শর্ত হলো, আমল একমাত্র আল্লাহর জন্য হওয়া এবং রাসূলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লামের আদর্শ অনুযায়ী হওয়া।

অনুবাদ: ইংরেজি ফরাসি স্পানিস তার্কিশ উর্দু ইন্দোনেশিয়ান বসনিয়ান রুশিয়ান চাইনিজ ফার্সি তাগালোগ ইন্ডিয়ান সিংহলী কুর্দি হাউসা পর্তুগীজ মালয়ালাম তেলেগু সুওয়াহিলি তামিল
অনুবাদ প্রদর্শন
1: ইখলাসের প্রতি উৎসাহ প্রদান করা। আল্লাহ কেবল সে আমলই কবুল করেন যা দ্বারা আল্লাহর সন্তুষ্টি উদ্দেশ্য করা হয়ে থাকে।
2: যে সব আমল দ্বারা আল্লাহর নৈকট্য লাভ করা হয়, তা যখন কোন ব্যক্তি অভ্যাসগত ভাবে পালন করে তা করার ওপর সাওয়াব লাভ করবে না। যদিও তা বিশুদ্ধ হয়। যতক্ষণনা তা দ্বারা আল্লাহর নৈকট্য হাসিলের উদ্দেশ্য না করা হয়।
3: আল্লাহ ও তার রাসূলের দিকে হিজরতের ফযীলত। এটি নেক আমলসমূহের অন্যতম। কারণ, এ দ্বারা আল্লাহর সন্তুষ্টি উদ্দেশ্য হয়ে থাকে।
4: যে হাদীসগুলোর ওপর ইসলামের ভিত্তি এ হাদীসটি তাঁরই একটি। এ কারণেই আলেমগণ বলেন, ইসলামের ভিত দুটি হাদীসের ওপর। হাদীস দুটি হলো, এ হাদীসটি এবং আয়েশা রাদিয়াল্লাহু আনহার হাদীস, যে ব্যক্তি এমন আমল করল যার ওপর আমার কোনো নির্দেশনা নাই তা প্রত্যাখ্যাত। এ হাদীসটি হলো অন্তরের আমলসমূহের মূল। অতএব এটি বাতেনী আমলসমূহের মাপকাটি। আর আয়েশা রাদিয়াল্লাহু আনহার হাদীস অঙ্গের আমলসমূহের মূল।
5: একটি ইবাদতকে অপর ইবাদত থেকে পৃথক করা খুবই জরুরী। অনুরূপভাবে ইবাদতকে মু‘আমালাত থেকে পৃথক করাও জরুরী। আর নিয়ত ব্যতীত আকৃতিতে এক ধরনের আমলকে অপর আমল থেকে পৃথক করা যায় না।
6: যে আমলে নিয়ত নাই তা অনর্থক। তার ওপর কোনো বিধান বা বিনিময় দেওয়া হয় না।
7: যে ব্যক্তি তার আমলে মুখলিস হবে অবশ্যই তার উদ্দেশ্য নির্দেশ পালন ও বিনিময়ের দিক দিয়ে হাসিল হবে এবং তার আমল বিশুদ্ধ হবে। যখন আমলের শর্তসমূহ পাওয়া যাবে তখন তার ওপর সাওয়াব সাব্যস্ত হবে।
8: যদি আমল আল্লাহর জন্য না করা হয় তবে আমল নষ্ট হবে।
9: দুনিয়া ও তার চাহিদাকে নিকৃষ্ট মনে করা। কারণ, তিনি বলেন, তার হিজরত সে জন্যই হবে যে জন্য সে হিজরত করেন। যে দুনিয়াবী উদ্দেশ্যে হিজরত করবে তার পাওনাকে অস্পষ্ট রাখা হয়েছে এবং যে আল্লাহ ও তার রাসূলের উদ্দেশ্যে হিজরত করবে তার সাওয়াব ও পাওনাকে স্পষ্ট করা হয়েছে। এটি বর্ণনার সৌন্দর্য্য ও কথার পাণ্ডিত্য।
Donate