عن عبد الله بن عباس -رضي الله عنهما- عن رسول الله -صلى الله عليه وآله وسلم- فيما يرويه عن ربه -تبارك وتعالى- قال: «إن الله كَتَبَ الحسناتِ والسيئاتِ ثم بَيَّنَ ذلك، فمَن هَمَّ بحسنةٍ فَلم يعمَلها كَتبها الله عنده حسنةً كاملةً، وإن هَمَّ بها فعمِلها كتبها اللهُ عندَه عشرَ حسناتٍ إلى سَبعِمائةِ ضِعْفٍ إلى أضعافٍ كثيرةٍ، وإن هَمَّ بسيئةٍ فلم يعملها كتبها الله عنده حسنة كاملة، وإن هَمَّ بها فعمِلها كتبها اللهُ سيئةً واحدةً». زاد مسلم: «ولا يَهْلِكُ على اللهِ إلا هَالِكٌ».
[صحيح.] - [متفق عليه.]
المزيــد ...

আব্দুল্লাহ ইবন আব্বাস রাদিয়াল্লাহু ‘আনহু থেকে বর্ণিত, রাসূলুল্লাহ সাল্লাল্লাহ আলাইহি ওয়াসাল্লাম তাঁর বর্কতময় মহান প্রভু থেকে বর্ণনা করেছেন, তিনি বলেন যে, “নিশ্চয় আল্লাহ পুণ্যসমূহ ও পাপসমূহ লিখে দিয়েছেন। অতঃপর তিনি তার ব্যাখ্যাও করে দিয়েছেন। যে ব্যক্তি কোন নেকী করার সংকল্প করে; কিন্তু সে তা কর্মে বাস্তবায়িত করতে পারে না, আল্লাহ তাবারাকা ওয়াতা‘আলা তার জন্য (কেবল নিয়ত করার বিনিময়ে) একটি পূর্ণ নেকী লিখে দেন। আর সে যদি সংকল্প করার পর কাজটি করে ফেলে, তাহলে আল্লাহ তার বিনিময়ে দশ থেকে সাতশ গুণ; বরং তার চেয়েও অনেক গুণ নেকী লিখে দেন। পক্ষান্তরে যদি সে একটি পাপ করার সংকল্প করে; কিন্তু সে তা কর্মে বাস্তবায়িত না করে, তাহলে আল্লাহ তা‘আলা তাঁর নিকট একটি পূর্ণ নেকী হিসাবে লিখে দেন। আর সে যদি সংকল্প করার পর ঐ পাপ কাজ করে ফেলে, তাহলে আল্লাহ মাত্র একটি পাপ লিপিবদ্ধ করেন।” মুসলিম বৃদ্ধি করেছেন, “আর আল্লাহর কাছে ধ্বংসপ্রাপ্ত ছাড়া কেউ ধ্বংস হয় না।”
সহীহ - মুত্তাফাকুন ‘আলাইহি (বুখারী ও মুসলিম)।

ব্যাখ্যা

এই মহান হাদীসের কতগুলো বিষয় হচ্ছে, (এক): কোন ভালো কাজের প্রতি আগ্রহী হয়ে তা করার ইচ্ছা করলে তার জন্য একটি নেকী লেখা হবে যদিও সে তা করতে পারেনি। আর যদি সে আমলটি করতে পারে তাকে দশগুণ থেকে নিয়ে আরো বহুগুণ সাওয়াব দেওয়া হবে। আর যে ব্যক্তি কোনো খারাপ কর্ম করার ইচ্ছা করে অতঃপর সে তা ছেড়ে দিল তার জন্য একটি নেকী লেখা হবে। আর যদি খারাপ কর্মটি করে তার জন্য একটি মাত্র গুনাহ লিপিবদ্ধ করা হবে। আর যে কোনো খারাপ কর্ম করার ইচ্ছা করল অতঃপর সে তা ছেড়ে দিল তার জন্য কোনো গুনাহ লেখা হবে না। এ গুলো সবই আল্লাহর রহমতের প্রশস্ততার প্রমাণ। তিনি তাদের প্রতি এমন মহান অনুগ্রহ ও বিশাল কল্যাণ দ্বারা নিজের বান্দাদের প্রতি অনুগ্রহ করেন।

অনুবাদ: ইংরেজি ফরাসি স্পানিস তার্কিশ উর্দু ইন্দোনেশিয়ান বসনিয়ান চাইনিজ ফার্সি তাগালোগ ইন্ডিয়ান ভিয়েতনামী কুর্দি হাউসা পর্তুগীজ
অনুবাদ প্রদর্শন
1: এ উম্মাতের ওপর আল্লাহ মহা অনুগ্রহের বর্ণনা। কারণ, হাদীসে যা উল্লেখ করেছেন তা যদি না হতো তখন মহা মুসবিত হতো। কারণ, বান্দার খারাপ আমল অসংখ্য।
2: ফিরিশতাগণ অন্তরের আমলসমূহ লিপিবদ্ধ করেন। এটি তাদের কথার পরিপন্থী যারা বলেন, তারা বাহ্যিক আমল ছাড়া আর কিছু লিপিবদ্ধ করে না।
3: সংঘটিত হওয়া, সাওয়াব ও শাস্তি হওয়া নেক ও বদ সহ সব আমলসমূহ লিপিবদ্ধ করা প্রমাণিত। কেননা, তিনি বলেছেন, নিশ্চয় আল্লাহ নেকি ও বদিসমূহ লিখেছেন।
4: সংঘটিত ভালো কাজ ও খারাব কাজসমূহ আগেই লিপিবদ্ধ হয়েছে এবং সাব্যস্ত হয়েছে। আর বান্দাগণ তা তাদের ইচ্ছা অনুযায়ী তাদের ওপর লিপিবদ্ধ অনুযায়ী করে থাকেন।
5: আল্লাহর কর্ম প্রমাণিত হওয়া তার কথা “কাতাবা” লেখা হলো দ্বারা। আর চাই আমরা বলি যে, এটি তার লিখার নির্দেশ অথবা বলি যে, সে নিজেই লিখেন উভয় একই কথা। এ বিষয়ে অন্যান্য হাদীসসমূহের কারণে। যেমন, রাসূলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম বলেন, তিনি নিজ হাতে তাওরাত লিখেছেন। কোনো প্রকার তুলনা ও ব্যাখ্যা ছাড়া।
6: মাখলুকের প্রতি আল্লাহর গুরুত্ব প্রদান যে, তিনি তাদের নেক ও বদসমূহ শর‘ঈ ও কাদরীভাবে লিপিবদ্ধ করেছেন।
7: আমল ও তার প্রভাবের ক্ষেত্রে নিয়ত গ্রহণযোগ্য।
8: সংক্ষেপে উল্লেখ করার পর বিস্তারিত উল্লেখ করা হলো ভাষার পান্ডিত্য।
9: ভালো কাজের ইচ্ছা করলে তা দ্বারা পূর্ণ নেকী লিপিবদ্ধ করা হয়।
10: আল্লাহ তা‘আলার অনুগ্রহ, দয়া ও মেহেরবানী হলো, যে ব্যক্তি নেক আমলের ইচ্ছা করল অথচ আমল করলো না তাতে আল্লাহ একটি নেকি লিপিবদ্ধ করেন আর যে ব্যক্তি খারাপ কর্মের ইচ্ছা করল; কিন্তু তা করল না, তাতেও আল্লাহ তার জন্য একটি নেকী লিপিবদ্ধ করেন। এখানে ইচ্ছা করার অর্থ হলো প্রতিজ্ঞা শুধু অন্তরের চাহিদা নয়।