عن أبي هريرة رضي الله عنه مرفوعًا: «إِنَّ الله -تَعَالى- يَغَارُ، وغَيرَةُ الله -تَعَالَى-، أَنْ يَأْتِيَ المَرء ما حرَّم الله عليه».
[صحيح] - [متفق عليه]
المزيــد ...

আবূ হুরায়রা রাদিয়াল্লাহু ‘আনহু হতে মারফূ হিসেবে বর্ণিত, “নিশ্চয় মহান আল্লাহ ঈর্ষা করেন এবং আল্লাহর ঈর্ষা হচ্ছে যখন মানুষ আল্লাহ কর্তৃক হারামকৃত কোন কাজে লিপ্ত হয়ে পড়ে”
সহীহ - মুত্তাফাকুন ‘আলাইহি (বুখারী ও মুসলিম)।

ব্যাখ্যা

এ হাদীসটি এ কথার বর্ণনা দেওয়ার জন্য বর্ণিত যে, নিশ্চয় মহান আল্লাহ তার নিষিদ্ধ বিষয়সমূহে ঈর্ষান্বিত হন এবং তার বিধান লঙ্ঘন করাকে অপছন্দ করেন। তার মধ্যে একটি ব্যবিচার করা। এটি একটি নিম্ন ও মন্দ পথ। এ কারণেই আল্লাহ তার বান্দাদের ওপর ব্যভিচার ও তার যাবতীয় উপকরণকে হারাম করেছেন। যখন বান্দা ব্যভিচার করে তখন আল্লাহ তা‘আলা অন্যান্য হারামের ওপর ঈর্ষা করার চেয়ে অনেক বেশী ও কঠিন ইর্ষা করেন।অনুরূপভাবে সমকাম। আর তা হলো পুরুষে পুরুষে যৌনাচার করা। এটি বড় ও আরও বড় পাপ। এ কারণেই একে আল্লাহ তা‘আলা যিনা থেকেও মারাত্মক ও জঘন্য অপরাধ সাব্যস্ত করেছেন। অনুরূপভাবে চুরি করা, মদ পান করা ও অন্যান্য নিষিদ্ধ কাজের কারণে আল্লাহ আল্লাহ তা‘আলা ক্ষুব্ধ হন। তবে অন্যায় ও তার ওপর যে ক্ষতি হয় তার বিবেচনায় কোন কোন অপরাধে কোন কোন অপরাধ থেকে বেশি ক্ষুব্ধ হন।

অনুবাদ: ইংরেজি ফরাসি স্পানিস তার্কিশ উর্দু ইন্দোনেশিয়ান বসনিয়ান রুশিয়ান চাইনিজ ফার্সি তাগালোগ ইন্ডিয়ান ভিয়েতনামী সিংহলী কুর্দি হাউসা পর্তুগীজ মালয়ালাম তেলেগু সুওয়াহিলি তামিল বার্মিজ জার্মানি জাপানিজ
অনুবাদ প্রদর্শন

ফায়দাসমূহ

  1. নিষিদ্ধ বিষয়সমূহ থেকে দূরে রাখা। কারণ, তা আল্লাহর ক্রোধের কারণ হয়।
  2. আল্লাহর শান অনুযায়ী আল্লাহর জন্য গাইরাতকে (আত্মমর্যাদা) সাব্যস্ত করা।
  3. আল্লাহকে স্মরণ করা এবং তার নিষেধকে ভঙ্গ করা হলে তাঁর ক্রোধ ও তাঁর শাস্তিকে ভয় করা।
আরো