عن أبي هريرة -رضي الله عنه- قال: قال رسول الله -صلى الله عليه وسلم-: «من يُرِدِ الله به خيرا يُصِبْ مِنه».
[صحيح.] - [رواه البخاري.]
المزيــد ...

আবূ হুরায়রা রাদিয়াল্লাহ ‘আনহু থেকে বর্ণিত, তিনি বলেন, রাসূলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম বলেছেন, “আল্লাহ যার মঙ্গল চান, তাকে দুঃখ-কষ্টে ফেলেন।”
সহীহ - এটি বুখারী বর্ণনা করেছেন।

ব্যাখ্যা

যখন আল্লাহ তার বান্দাদের প্রতি কল্যাণের ইচ্ছা করেন, তাদের জান, মাল ও সন্তান বিষয়ে তাদেরকে পরীক্ষায় ফেলেন, যাতে তা তাদের গুনাহ মাফ ও মর্যাদা বৃদ্ধির কারণ হয়। নিঃসন্দেহে বলা যায় এটি তাদের জন্য দুনিয়া ও আখিরাত উভয় জগতে উত্তম। দুনিয়াতে উত্তম: কারণ, তাতে দো‘আ, মুনাজাত, কান্নাকাটি ও অক্ষমতা প্রকাশের মাধ্যমে আল্লাহর দিকে ফিরে যাওয়া হয়। আর আখিরাতে উত্তম; কারণ, গুনাহ মাফ হয় এবং মর্যাদা বৃদ্ধি পায়। আল্লাহ তা‘আলা বলেন, “আর আমরা অবশ্যই তোমাদেরকে পরীক্ষা করব কিছু ভয়, ক্ষুধা এবং জান-মাল ও ফল-ফলাদির স্বল্পতার মাধ্যমে। আর তুমি ধৈর্যশীলদের সুসংবাদ দাও।” [সূরা আল-বাকারাহ, আয়াত: ১৫৫] কিন্তু এ ব্যাপক (মুতলাক) হাদীসটি অন্যান্য হাদীস দ্বারা সংকুচিত (মুকাইয়াদ)। যে হাদীস প্রমাণ করে যে, এ হাদীসের উদ্দেশ্য হচ্ছে: যার প্রতি আল্লাহ কল্যাণের ইচ্ছা করেন সে ধৈর্য ধারণ করে এবং সাওয়াবের আশা করে, আল্লাহ তাকে মুসীবত দেন যাতে তিনি তার পরীক্ষা নেন। আর যদি সে ধৈর্য ধারণ না করে, তাহলে অনেক সময় মানুষের ওপর অনেক বিপদ আসে; কিন্তু তাতে তার জন্য কোনো কল্যাণ থাকে না, আল্লাহও তার জন্য কল্যাণের ইচ্ছা করেন নি। যেমন, কাফিররা অনেক মুসীবতে আক্রান্ত হয়, তারপরও তারা কুফুরী থেকে ফিরে না, এমনকি তারা কাফির অবস্থায় মারা যায়। নিঃসন্দেহে তাদের প্রতি আল্লাহ কল্যাণের ইচ্ছা করেন নি। (কিন্তু এখানে উদ্দেশ্য হলো, যার প্রতি আল্লাহ কল্যাণের ইচ্ছা করেন, তাকে মুসীবতে ফেলেন, তারপর সে এ সব মুসীবতের ওপর সবর করে। আর তা অবশ্যই তার জন্য কল্যাণকর হয়।)

অনুবাদ: ইংরেজি ফরাসি স্পানিস তার্কিশ উর্দু ইন্দোনেশিয়ান বসনিয়ান রুশিয়ান চাইনিজ ফার্সি তাগালোগ ইন্ডিয়ান ভিয়েতনামী সিংহলী উইঘুর কুর্দি হাউসা
অনুবাদ প্রদর্শন
1: একজন মু‘মিন দুনিয়াতে বিভিন্ন ধরনের বিপদের সম্মুখীন হয়ে থাকে চাই তা তার মালের ক্ষেত্রে অথবা দীনের ক্ষেত্রে।
2: এতে রয়েছে মুসলিমের জন্য বড় সু-সংবাদ, কেননা কোনো মুসলিম কষ্ট-ক্লেশ থেকে মুক্ত নয়।
3: বিপদের সম্মুখীন হওয়া কখনো বান্দার প্রতি আল্লাহর ভালোবাসার আলামত হয় যাতে তার মর্যাদা বৃদ্ধি করা হয় এবং তার গুনাহগুলো ক্ষমা করে দেওয়া হয়।