عن أبي هريرة -رضي الله عنه- مرفوعاً: «مَنْ حَجَّ، فلَمْ يَرْفُثْ، وَلم يَفْسُقْ، رَجَعَ كَيَوْمَ وَلَدْتُهُ أُمُّهُ».
[صحيح.] - [متفق عليه.]
المزيــد ...

আবূ হুরায়রা রাদিয়াল্লাহু আনহু থেকে মরফূ‘ হিসেবে বর্ণিত, “যে ব্যক্তি হজ পালন করল এবং (তাতে) কোন অশ্লীল কাজ করল না ও পাপাচার করল না, সে ব্যক্তি ঠিক ঐ দিনকার মত (নিষ্পাপ হয়ে) বাড়ি ফিরল, যেদিন তার মা তাকে প্রসব করেছেন।”
সহীহ - মুত্তাফাকুন ‘আলাইহি (বুখারী ও মুসলিম)।

ব্যাখ্যা

যে ব্যক্তি আল্লাহর জন্য হজ পালন করল এবং হজ পালনকালীন তার থেকে কোনো মন্দ কথা ও কাজ প্রকাশ পেলো না এবং সে কোনো পাপও করল না, সে তার হজ থেকে ক্ষমাপ্রাপ্ত হয়ে ফিরল, যেমন শিশু নিষ্পাপ হয়ে জন্ম লাভ করে। আর হজের কাফ্ফারা (গুনাহ মাপের বিষয়টি) ছোট গোনাহ ও ভুল-ত্রুটির সাথে নির্দিষ্ট, অন্যদিকে কবীরা গোনাহের জন্য তাওবা করা জরুরী।

অনুবাদ: ইংরেজি ফরাসি স্পানিস তার্কিশ উর্দু ইন্দোনেশিয়ান বসনিয়ান রুশিয়ান চাইনিজ ফার্সি ইন্ডিয়ান উইঘুর কুর্দি হাউসা পর্তুগীজ মালয়ালাম
অনুবাদ প্রদর্শন
1: হজ অশ্লীল ও পাপের কার্যকলাপ থেকে আত্মাকে পবিত্র করে।
2: হজ অতীতের গুনাহ ও পাপসমূহকে মোচনকারী।
3: পাপকর্ম যদিও সর্বাবস্থায় নিষিদ্ধ; তথাপি বায়তুল্লাহিল হারামে (আল্লাহর সম্মানিত ঘরে) সম্পাদিত ইবাদত হজের সম্মানার্থে তার নিষিদ্ধতা আরও গুরুতর।
4: মানুষ সাধারণত মায়ের পেট থেকে নিষ্পাপ ও গুনাহবিহীন জন্মগ্রহণ করে। সে অন্যের (পিতা-মাতার) গুনাহ বহন করে না।