عن يحيى المازني -رحمه الله- قال: ((شَهِدتُّ عمرو بن أبي حسن سأل عبد الله بن زيد عن وُضوء النبي -صلى الله عليه وسلم-؟ فدعا بتَور من ماء، فتوضَّأ لهم وُضُوء رسول الله -صلى الله عليه وسلم-، فأكفَأ على يديه من التَّورِ، فغسَل يديه ثلاثًا، ثم أدخل يدهُ في التور، فمَضْمَض واسْتَنْشَق واسْتَنْثَر ثلاثا بثلاثِ غَرَفَات، ثم أدخل يده فغسل وجهه ثلاثا، ثم أدخل يده في التور، فغَسَلَهُما مرَّتين إلى المِرْفَقَين، ثم أدخل يدَه في التَّور، فمَسَح رأسَه، فأَقْبَل بهما وأَدْبَر مرَّة واحدة، ثم غَسَل رِجلَيه)). وفي رواية: ((بدأ بمُقَدَّم رأسه، حتى ذَهَب بهما إلى قَفَاه، ثم رَدَّهُما حتَّى رَجَع إلى المكان الذي بدأ منه)). وفي رواية ((أتانا رسول الله -صلى الله عليه وسلم- فأخْرَجنا له ماء في تَورٍ من صُفْرٍ)).
[صحيح.] - [الرواية الأولى: متفق عليها الرواية الثانية: متفق عليها الرواية الثالثة : رواها البخاري.]
المزيــد ...

ইয়াহইয়া আল-মাযনী রাহিমাহুল্লাহ থেকে বর্ণিত: তিনি বলেন, আমি ‘আমর ইব্নু আবূ হাসানকে দেখেছি তিনি ‘আবদুল্লাহ্ ইব্নু যায়দকে নবী সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম -এর উযূ সম্পর্কে প্রশ্ন করলে তিনি এক পাত্র পানি আনলেন এবং তাঁদের (দেখাবার) জন্য নবী সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম -এর মতো উযূ করলেন। তিনি পাত্র থেকে দু’হাতে পানি ঢাললেন ও তার দু’হাত তিনবার ধুলেন। অতঃপর পাত্রের মধ্যে হাত ঢুকিয়ে তিন খাবলা পানি নিয়ে কুলি করলেন এবং নাকে পানি দিয়ে নাক ঝাড়লেন তিনবার। তারপর আবার হাত ঢুকালেন। তিনবার তাঁর মুখমণ্ডল ধুলেন। তারপর আবার হাত ঢুকিয়ে (পানি নিয়ে) দুই হাত কনুই পর্যন্ত দু’বার ধুলেন। তারপর আবার হাত ঢুকিয়ে উভয় হাত দিয়ে সামনে এবং পেছনে একবার মাত্র মাথা মাস্হ করলেন। তারপর দু’ পা ধুলেন। অপর একটি বর্ণনায়: তার মাথার সামনের অংশ থেকে শুরু করে পিছন পর্যন্ত নিয়ে যান। অতঃপর হাত দুটিকে পুণরায় আগের জায়গায় ফিরিয়ে আনেন যেখান থেকে সে শুরু করেন। অপর বর্ণনা: আমাদের নিকট রাসূলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম আসলেন ফলে আমরা তার জন্যে পশমের একটি পাত্রে করে পানি বের করলাম।

ব্যাখ্যা

সুন্নাতের ইত্তেবার প্রতি সালফে সালেহীনগণ অধিক আগ্রহী হওয়ার কারণে তারা নবী সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লামের আমলের পদ্ধতি সম্পর্কে জিজ্ঞাসা করতেন, যেন তাতে তারা তার অনুকরণ করতে পারেন। এ হাদীটিতে আমর ইবন ইয়াহইয়া আল-মাযনী রাহিমাহুল্লাহ তার পিতা থেকে বর্ণনা করেন, তিনি তার চাচা ‘আমর ইব্নু আবূ হাসানকে দেখেছেন তিনি ‘আবদুল্লাহ্ ইব্নু যায়দ যিনি একজন সাহাবী রাদিয়াল্লাহু আনহুকে নবী সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম -এর উযূ সম্পর্কে প্রশ্ন করতে। তারপর আব্দুল্লাহ তার জন্য প্রাকটিকেল বর্ণনা দেওয়ার ইচ্ছা করলেন। কারণ এটি খুব দ্রুত আয়ত্ব করা যায় এবং মনের মধ্যে অতি তাড়াতাড়ি গেঁথে যায়। তিনি এক পাত্র পানি আনলেন এবং তিনি প্রথমে দুই হাতের কব্জি ধোয়ার মাধ্যমে ওযূ শুরু করলেন। কারণ, এ দুটি ধোয়া ও পানি তোলার যন্ত্র। তারপর তিনি পাত্র থেকে দু’হাতের কব্জিতে পানি ঢাললেন এবং তা তিনবার ধুইলেন। তারপর তিনি তার হাতকে পাত্রে ডুবালেন। অতঃপর পাত্রের মধ্যে হাত ঢুকিয়ে তিন খাবলা পানি নিলেন। প্রতি খাবলে কুলি করলেন এবং নাকে পানি দিয়ে নাক ঝাড়লেন। তারপর আবার পাত্রে হাত ঢুকালেন। তারপর তাঁর মুখমণ্ডল তিনবার ধুলেন। তারপর আবার হাত ঢুকিয়ে (পানি নিয়ে) দুই হাত কনুই পর্যন্ত দু’বার দু’বার ধুলেন। তারপর আবার হাত ঢুকিয়ে উভয় হাত দিয়ে মাথা মাসেহ করলেন। সামনের অংশ থেকে শুরু করে গরদানের উপরি অংশের পিছন পর্যন্ত গেলেন অতঃপর হাতদ্বয়কে ফিরিয়ে এনে যেখান থেকে শুরু করলেন সেখানে এসে পৌঁছালেন। এভাবে করলেন যাতে মাথার চুলের সামনের এবং পিছনের উভয় অংশকে অন্তভুর্ক্ত করে নেয়। ফলে মাথার বাহ্যিক ও ভিতর উভয়টিকে মাসেহ সামিল করে। তারপর দু’ পা টাখনু পর্যন্ত ধুলেন। আর আব্দুল্লাহ ইবনে যায়েদ রাদিয়াল্লাহু ‘আনহু বর্ণনা করেন যে, এটি রাসূলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লামের আমল ছিল যখন তিনি তাদের নিকট আগমন করেন এবং তারা তার জন্য পশমের একটি পাত্রে পানি বের করলেন। যাতে তিনি তা দ্বারা ওযূ করেন। আব্দুল্লাহ এ কথা এ জন্য বর্ণনা করেন যাতে প্রমাণিত হয় যে, সে বিষয়টি সম্পর্কে নিশ্চিত ছিলেন।

অনুবাদ: ইংরেজি ফরাসি স্প্যানিশ তার্কিশ উর্দু ইন্দোনেশিয়ান বসনিয়ান রুশিয়ান চাইনিজ
অনুবাদ প্রদর্শন