عن عائشة -رضي الله عنها- قالت: ما صلّى رسول الله -صلى الله عليه وسلم- بعد أن نَزَلت عليه: (إذا جاء نصرُ الله والفتح..) إلا يقول فيها: «سُبْحَانَكَ اللهم ربَّنا وبحمدك، اللَّهُمَّ اغفر لي». وفي لفظ: كان رسول الله -صلى الله عليه وسلم- يكثر أن يقولَ في ركوعه وسجوده: «سُبْحَانَكَ اللَّهُمَّ ربنا وبحمدك، اللَّهُمَّ اغْفِرْ لي».
[صحيح.] - [متفق عليه.]
المزيــد ...

আয়েশা রাদিয়াল্লাহু ‘আনহা হতে বর্ণিত, তিনি বলেন, “সূরা নাসর নাযিল হওয়ার পর রাসূলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম যখন সালাত পড়তেন, তাতে অবশ্যই বলতেন : “সুবহানাকাল্লাহুম্মা রাব্বানা ওয়াবি হামদিকা, আল্লাহুম্মাগফির লি”। অপর শব্দে এসেছে: নবী সাল্লাল্লাহ আলাইহি ওয়াসাল্লাম রুকূ ও সিজদাতে এই তাসবীহটি অধিক মাত্রায় পড়তেন, ‘সুবহানাকা আল্লাহুম্মা রাব্বানা অবিহামদিক, আল্লাহুম্মাগফিরলী।’ অর্থাৎ, হে আমাদের রব আল্লাহ! তোমার প্রশংসা সহকারে তোমার পবিত্রতা ঘোষণা করছি, হে আল্লাহ আমাকে ক্ষমা কর।

ব্যাখ্যা

এ হাদীসটিতে আয়েশা রাদিয়াল্লাহু ‘আনহা উল্লেখ করেন যে, যখন আল্লাহ তা‘আলা নবী সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লামের ওপর সূরা নসর নাযিল করল এবং তিনি সাহায্য ও মক্কা বিজয়ের পূর্বাবাস দেখেন, তখন তিনি আল্লাহর নির্দেশ পালনের প্রতি আরও অধিক অগ্রসর হন। তাই তিনি এ কথাগুলো অধিকহারে বলতেন। ‘সুবহানাকা আল্লাহুম্মা রাব্বানা অবিহামদিক, আল্লাহুম্মাগফিরলী।’ অর্থাৎ, হে আমাদের রব আল্লাহ! তোমার প্রশংসা সহকারে তোমার পবিত্রতা ঘোষণা করছি, হে আল্লাহ আমাকে ক্ষমা কর। এ বাক্যগুলো আল্লাহর ত্রুটি থেকে মুক্ত হওয়া ও তার প্রশংসাকে একত্র করেছে। আর আল্লাহর থেকে ক্ষমা প্রার্থনার মাধ্যশে শেষ করা হয়েছে। আর তিনি নফল বা ফরয যে কোন সালাত আদায় করতেন তার রুকূ বা সেজদায় এ বাক্যগুলো বলতেন। আর সূরাটিতে রাসূলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লামের মৃত্যু সন্নিকটে হওয়ার আলামত নিহিত ছিল।

অনুবাদ: ইংরেজি তার্কিশ উর্দু বসনিয়ান চাইনিজ
অনুবাদ প্রদর্শন