عن ابن مسعود -رضي الله عنه- قال: قال لي النبي -صلى الله عليه وسلم-: «اقرأ عليَّ القرآنَ»، فقلت: يا رسول الله، أقرأ عليك، وعليك أُنزل؟! قال: «إني أحب أن أسمعه من غيري» فقرأتُ عليه سورةَ النساءِ، حتى جِئْتُ إلى هذه الآية: {فَكَيْفَ إِذَا جِئْنَا مِنْ كُلِّ أُمَّةٍ بِشَهِيدٍ وَجِئْنَا بِكَ عَلَى هَؤُلاَءِ شَهِيدًا} قال: «حَسْبُكَ الآنَ» فالتفتُّ إليه، فإذا عَيْنَاهُ تَذْرِفَانِ.
[صحيح.] - [متفق عليه.]
المزيــد ...

ইবনে মাসঊদ —রাদিয়াল্লাহু ‘আনহু— থেকে বর্ণিত, তিনি বলেন, নবী সাল্লাল্লাহ আলাইহি ওয়াসাল্লাম আমাকে বললেন, “তুমি আমার সামনে কুরআন তিলাঅত কর।” আমি আরজ করলাম, ‘আমি আপনার সামনে তিলাওয়াত করব, অথচ তা আপনার উপর অবতীর্ণ করা হয়েছে?’ তিনি বললেন, “আমি অন্যের কাছ থেকে তা শুনতে ভালবাসি।” অতএব তার নিকট আমি সূরা ‘নিসা’ তিলাওয়াত করলাম। পরিশেষে যখন আমি এ আয়াতে এসে পৌঁছলাম; যার অর্থ, “তখন তাদের কী অবস্থা হবে, যখন প্রত্যেক সম্প্রদায় থেকে একজ সাক্ষী (নবী) উপস্থিত করব এবং তোমাকেও তাদের সাক্ষীরূপে উপস্থিত করব?” তখন তিনি আমাকে বললেন, “যথেষ্ট, এবার থাম।” আমি তাকিয়ে দেখলাম, তাঁর চক্ষু দু’টি থেকে অশ্রুধারা প্রবাহিত হচ্ছে”।

ব্যাখ্যা

নবী সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম আব্দুল্লাহ ইবন মাসউদকে তার নিকট কুরআন তিলাওয়াত করতে বললেন, ফলে তিনি বললেন, হে আল্লাহর রাসূল আমি কীভাবে আপনাকে তিলাওয়াত শুনাবো অথচ আপনার ওপর কুরআন নাযিল হয়েছে? কুরআন সম্পর্কে আপনি আমার থেকে অধিক জ্ঞানী। তখন সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম বললেন, “আমি অন্যের কাছ থেকে তা শুনতে ভালবাসি।” অতএব সে সূরা ‘নিসা’ তিলাওয়াত করল। যখন সে এ মহান আয়াতে এসে পৌঁছল; যার অর্থ, “তখন তাদের কী অবস্থা হবে, যখন প্রত্যেক সম্প্রদায় থেকে একজন সাক্ষী (নবী) উপস্থিত করব এবং তোমাকেও তাদের সাক্ষীরূপে উপস্থিত করব?” অথাৎ তখন তোমার অবস্থা কি হবে এবং তাদের অবস্থা কি হবে? তখন নবী সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম বললেন, “যথেষ্ট, এবার থাম।” অর্থাৎ তুমি তিলাওয়আত বন্ধ কর। ইবন মাসউদ বলেন, আমি তার দিকে তাকিয়ে দেখলাম, উম্মাতের দয়ায় তার চক্ষু দু’টি থেকে অশ্রুধারা প্রবাহিত হচ্ছে।

অনুবাদ: ইংরেজি ফরাসি স্প্যানিশ তার্কিশ উর্দু ইন্দোনেশিয়ান বসনিয়ান রুশিয়ান চাইনিজ
অনুবাদ প্রদর্শন