عن أبي هريرة -رضي الله عنه- أن رسول الله -صلى الله عليه وسلم- قال: «بَادِرُوا بالأَعْمَالِ سَبْعًا، هَلْ تَنْتَظِرُونَ إلا فَقْرًا مُنسيًا، أو غِنًى مُطْغِيًا، أو مَرَضًا مُفْسِدًا، أو هَرَمًا مُفَنِّدًا، أو مَوْتًا مُجْهِزًا، أو الدَّجَالَ فَشَرُّ غَائِبٍ يُنْتَظَرُ، أو الساعةَ فالساعةُ أَدْهَى وَأَمَرُّ».
[ضعيف.] - [رواه الترمذي.]
المزيــد ...

আবূ হুরাইরাহ রাদিয়াল্লাহু ‘আনহু থেকে বর্ণিত, রাসূলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম বলেছেন, সাতটি জিনিসের পূর্বেই তোমরা জলদি সব কর্ম করে ফেল। তোমরা কি অপেক্ষায় থাকবে যে, এমন দারিদ্র এসে যাক ইসলামের আদেশ পালন হতে যা বিস্মৃত রাখে? অথবা এমন ধন-দৌলত হোক যা ইসলাম দ্রোহিতার দিকে ধাবিত করে? অথবা এমন ব্যাধি হোক যা শরীরকে দুর্বল করে দেয়? অথবা এমন বার্ধক্য আসুক যা জ্ঞান বিনষ্ট করে? অথবা হঠাৎ মরণ এসে যাক, অদৃশ্য দুই দাজ্জালের আত্মপ্রকাশ ঘটুক অথবা কিয়ামাত এসে যাক? আর কিয়ামাত তো নিতান্তই বিভীষিকাময় ও তিক্ত।

ব্যাখ্যা

তোমরা সাতটি জিনিস আসার আগেই দ্রুত কল্যাণমূলক কাজ কর। এগুলো মানুষকে বেষ্টন করে আছে। মানুষ এগুলোতে আক্রান্ত হতে পারে। (১) এমন দারিদ্র আসার আগেই আমল করা চাই, যা মানুষকে অনেক কল্যাণকর কাজই ভুলিয়ে দেবে। কেননা সে রিযিকের সন্ধানে ব্যস্ত হয়ে যাওয়ার কারণে অনেক গুরুত্বপূর্ণ কাজ ত্যাগ করবে অথবা (২) এমন ধন-সম্পদের মালিক হয়ে যাওয়ার আগে, যা তাকে এবাদতের হক আদায় থেকে বিরত রাখবে অথবা (৩) বিবেক ও শরীর ধ্বংসকারী এমন ব্যাধি আসার আগে, যা তাকে ইবাদত করা থেকে বিরত রাখবে অথবা (৪) এমন বার্ধক্য আসার আগে, যা তাকে বিশুদ্ধ কথা থেকে বিকৃত কথার দিকে ধাবিত করবে অথবা (৫) দ্রুত মৃত্যু আসার আগে অথবা (৬) দাজ্জাল আসার আগে, যাকে আল্লাহ শেষ জমানায় প্রেরণ করবেন। সে খুবই নিকৃষ্ট অনুপস্থিত প্রতিক্ষীত। তার ফিতনা খুবই ভয়াবহ। আল্লাহ যাকে মুক্ত রাখেন সে ব্যতীত তার ফিতনা থেকে অন্য কেউ নাজাত পাবে না। অথবা (৭) কিয়ামত চলে আসার আগে। এর ফিতনা আরো ভয়াবহ এবং দুনিয়ার আযাব ও ভীতি থেকে আরো বেশী ভীতিকর ও কঠিন। এই হাদীসটি দুর্বল। যেমন ইতিপূর্বে গত হয়েছে। তবে অন্যান্য হাদীছ থেকে কল্যাণমূলক কাজ দ্রুত করার বিষয়টি প্রমাণিত হয়। যেমন আল্লাহ তাআলা বলেছেন, سَابِقُوا إِلَى مَغْفِرَةٍ مِنْ رَبِّكُمْ وَجَنَّةٍ عَرْضُهَا كَعَرْضِ السَّمَاءِ وَالْأَرْضِ “তোমরা আল্লাহর মাগফিরাত ও রহমতের দিকে দৌঁড়ে যাও, যার প্রশস্ততা আসমানও জমিন”। (সূরা হাদীদ: ২১) আল্লাহ তাআলা আরো বলেন, وَسَارِعُوا إِلَى مَغْفِرَةٍ مِنْ رَبِّكُمْ وَجَنَّةٍ عَرْضُهَا السَّمَاوَاتُ وَالْأَرْضُ “তোমরা তোমাদের রবের মাগফিরাত ও জান্নাতের দিকে দৌঁড়ে যাও, তার প্রশস্ততা আসমান ও জমিন”। [সূরা আলে ইমরান, আয়াত: ১৩৩]

অনুবাদ: ইংরেজি ফরাসি স্প্যানিশ তার্কিশ উর্দু ইন্দোনেশিয়ান বসনিয়ান রুশিয়ান চাইনিজ
অনুবাদ প্রদর্শন